বগুড়া থিয়েটার ভার্চুয়াল প্লাটফর্ম থেকে পহেলা বৈশাখ ১৪২৮

অলক পাল:
অন্ধ রাত করো প্রভাত, আলো দাও। এই স্লোগানে এবারো বগুড়া থিয়েটার ভার্চুয়াল প্লাটফর্ম থেকে পহেলা বৈশাখ ১৪২৮ এর বৈশাখী মেলার অনুষ্ঠান আয়োজন করলো। এবার ৪২তম আয়োজনের উদ্বোধন করেন বগুড়া থিয়েটারের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি, বীর মুক্তিযোদ্ধা কৃষিবিদ এ. এইচ. বজলুর রশিদ রাজা। নতুন বছরের সকালে বৈশাখী মেলার ওস্তাদ আলাউদ্দিন শুণ্যমঞ্চে বগুড়া থিয়েটারের সাধারণ সম্পাদক তৌফিক হাসান ময়না প্রদীপ প্রজ্জ্বালন করেন। যে মঞ্চ থেকে প্রতি বৈশাখের প্রথম দিনে উচ্চারিত হত নতুনকে আবাহনের গান, কিন্তু করোনা মহামারীতে ছেদ পরেছে আয়োজনে। করোনাকালে এবার দ্বিতীয় বারের মত স্ট্রিম ইয়ার্ডের মাধ্যমে বর্ষবরণের অনুষ্ঠানটি বগুড়া থিয়েটারের ফেসবুক পেজের মাধ্যমে দেশ বিদেশের অগণিত বাঙালি উপভোগ করেন।

বগুড়া থিয়েটারের বৈশাখী মেলার ভার্চুয়াল আয়োজনে আলোচনায় যুক্ত হন বাংলা নাটকের সুবর্ণপুত্র, বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটারের সভাপতি নাসির উদ্দীন ইউসুফ। তিনি বলেন, বৈশাখ আমাদের অন্ধকারে আলো দেখায়। বগুড়া থিয়েটার দীর্ঘ চার দশক সময় ধরে বাঙালির চিরন্তন ঐতিহ্যকে লালন করছে। বগুড়া পৌরসভার নব নির্বাচিত মেয়র রেজাউল করিম বাদশা তার বক্তব্যে বগুড়া থিয়েটারকে ধারাবাহিকতা রক্ষার জন্য ধন্যবাদ জানান।

বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের সেক্রেটারি জেনারেল কামাল বায়েজিদ। তিনি বলেন, বঙালির লড়াই এখন ধর্মান্ধদের বিরুদ্ধে যারা স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে আবার যেনো মাথা চাড়া দিয়ে উঠতে চাইছে এদের রুখে দিতে হবে ঐক্যবদ্ধভাবে।

এছাড়াও আরো বক্তব্য রাখেন, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক আবু সাঈদ সিদ্দিকী, বগুড়া থিয়েটারের সহ সভাপতি প্রদীপ ভট্টাচার্য শঙ্কর, যুগ্ম সম্পাদক ফারুক হোসেন, বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটারের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল হান্নান, বগুড়া ইয়ুথ কয়্যারের সভাপতি লায়ন আতিকুর রহমান মিঠু, কলেজ থিয়েটারের আহ্বায়ক রবিউল করিম। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বগুড়া থিয়েটারের সাধারণ সম্পাদক তৌফিক হাসান ময়না। তিনি বলেন, “বগুড়া থিয়েটার একটি আদর্শিক জায়গা থেকে ৪২ বছর ধরে আয়োজন করে আসছে বৈশাখী মেলা কিন্ত বৈশ্বিক মহামারিতে থমকে গেছে সব। মানুষ কখনো পরাজিত হয় নি, বৈশাখ আমাদের অন্ধকারে আলো দেখাবে।” আলোচনা সভার সভাপতিত্ব করেন বগুড়া থিয়েটারের সহ সভাপতি এড. পলাশ খন্দকার।

প্রতিবারের মতো মঙ্গলপত্র পাঠ করা হয় এবং তার পরপরেই বগুড়া থিয়েটারের নাট্যকর্মীরা যে যার বাড়ি থেকে গেয়ে ওঠেন বৈশাখের প্রাণের গান এসো হে বৈশাখ এসো এসো। ভার্চ্যুয়াল আয়োজনে সংগীত পরিবেশন করেন সোবহানি বাপ্পি, তৌহিদুল ইসলাম রাঙ্গা, সুলতানা ইসলাম লাকী, তৌহিদ স্বর্গ, সাবরিন সামান্তা, বিমল কবিরাজ, বিশাল চাকী, তবলায় সংগত করেন বায়েজিদ নিবিড়। আবৃত্তি করেন বগুড়া থিয়েটারের নাট্যকর্মী নূরে জান্নাত নিশু, নৃত্য পরিবেশন করেন প্রতীতি রায় শ্রেয়া, কাহালু থিয়েটারের নাট্যকর্মী সাদিয়া জেরিন প্রভা। পুরো অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন বগুড়া থিয়েটারের দপ্তর সম্পাদক অলক পাল। কারিগরি সহায়তা প্রদান করেন কলেজ থিয়েটারের নাট্যকর্মী সাকিব শুভ ও বগুড়া থিয়েটারের নাট্যকর্মী সর্দার হামিদ। দুই ঘন্টার ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানটি দেশ বিদেশের প্রায় দশ হাজার দর্শক প্রাণ ভরে উপভোগ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *