Skip to content

নৃত্যশিল্পী সংস্থার সম্মাননায় ভূষিত মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর ও বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটার

গ্রাম থিয়েটার ডেস্ক:
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ এবং বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে গত ২০ ডিসেম্বর ২০২১ (সোমবার) সন্ধ্যা ৬.৩০মিঃ বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার মূল হলে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বাংলাদেশ নৃত্যশিল্পী সংস্থা। সম্মাননা স্মারক প্রদান, আলোচনা সভা ও নৃত্য পরিবেশনায় সজ্জিত ছিল অনুষ্ঠান।

অনুষ্ঠানে দুটি প্রতিষ্ঠানকে সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়। প্রতিষ্ঠান দুটি হলো মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর এবং বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটার। মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের পক্ষে সম্মাননা গ্রহণ করেন প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা ট্রাস্টি ডাঃ সারওয়ার আলী। বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটারের পক্ষে সম্মাননা গ্রহণ করেন সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক তৌফিক হাসান ময়না।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সংস্কৃতি সচিব মোঃ আবুল মনসুর। সভাপতিত্ব করেন শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী। অনুষ্ঠানের শুরুতে প্রধান অতিথিকে উত্তরীয় পরিয়ে বরণ করেন নৃত্যশিল্পী সংস্থার সভাপতি মিনু হক।

সম্মাননা স্মারক প্রদান এবং আলোচনা শেষে দ্বিতীয় পর্বে ছিল নৃত্যানুষ্ঠান। নৃত্যশিল্পীদের পরিচালনায় উপস্থাপিত হয় একগুচ্ছ বৈচিত্র্যময় পরিবেশনা। প্রতিটি পরিবেশনার সঙ্গে মিশেছিল স্বদেশের গান। মাতৃভূমির প্রতি মুগ্ধতা প্রকাশে উপস্থাপিত হয় উদ্বোধনী নৃত্য। আজি বাংলাদেশের হৃদয় হতে কখন আপনি/তুমি এই অপরূপ রূপে বাহিলে জননী… গানের সুরে দীপা খন্দকারের পরিচালনায় পরিবেশনাটি উপস্থাপন করে দিব্য সাংস্কৃতিক সংগঠন। বিজয় দেখেছিলাম ষোলোই ডিসেম্বরে/বিজয়ের নাম লিখেছিলাম বিশ্ব মানচিত্রে… গানের সুরে উপস্থাপিত হয় একঝাঁক উপস্থাপিত হয় একঝাঁক শিশু শিল্পীর পরিবেশনা। সালমা মুন্নীর পরিচালনায় পরিবেশনাটি উপস্থাপন করে নৃত্যদল নৃত্যাক্ষ। একটি বাংলাদেশ তুমি জাগ্রত জনতার/সারা বিশ্বের বিস্ময় তুমি আমার অহংকার… গানের সুরে সামিনা হোসাইন প্রেমার নির্দেশনায় নাচ করে নৃত্যদল ভাবনার শিল্পীরা। জয় বাংলা বাংলার জয় এই সুরের আশ্রয়ে ফাতেমা কাশেমের পরিচালনায় পরিবেশনা উপস্থাপন করে ঝংকার ললিতকলা একাডেমির শিল্পদল। সাজু আহম্মেদের পরিচালনায় পরিবেশনা উপস্থাপন করে কত্থক নৃত্য সম্প্রদায়। মুনমুন আহম্মেদের নির্দেশনায় পরিবেশনা উপস্থাপন করে রেওয়াজ পারফরমিং আর্টস। নিলুফার ওয়াহিদ পাপড়ির পরিচালনায় নাচ করে নান্দনিক নৃত্য সংগঠন। এছাড়া সোহেল রহমানের পরিচালনায় শিখর কালচারাল সেন্টাল এবং লিখন রায়ের নির্দেশনায় নৃত্যকথার শিল্পীরা পরিবেশনা উপস্থাপন করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.